মামলার কার্যতালিকা

সকল মামলার তথ্য এক ঠিকানায়
সচরাচর জিজ্ঞাসা

১। অনলাইন কজলিস্ট কী?
অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেম একটি পৃথক বাতায়ন যা বিচার বিভাগীয় বাতায়নের সাথে অংগীভূত। উচ্চ আদালত ও অধস্তন আদালতের সকল মামলার তথ্য দ্বারা সমৃদ্ধ । সরকারি উদ্যোগে বাংলাদেশের উচ্চ আদালত ও অধস্তন আদালত সহ সকল মামলা সম্পর্কিত তথ্য একটি ওয়েবসাইট একসূত্রে সংযুক্ত করার নজির বিশ্বের বুকে সর্বপ্রথম বাংলাদেশেই স্থাপিত হয়েছে। বিচার বিভাগের প্রতিটি দপ্তরের মাঠ পর্যায় থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় পর্যায়ের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিরলস পরিশ্রমের ফসল এ কজলিস্ট সিস্টেম। স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক, উদ্ভাবনী ও জনমুখী বিচার বিভাগ প্রতিষ্ঠা এবং আদালত ও নাগরিকের মধ্যকার দূরত্ব কমানোর লক্ষেই এ সিস্টেমের যাত্রা। বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট ও এটুআই প্রোগ্রামের নেতৃত্ব ও তত্বাবধানে পরীক্ষামূলকভাবে এটি শুরু হলেও ক্রমেই এর ব্যাপ্তি বিশাল হয়ে এখন অসংখ্য আদালতের অনন্য এক তথ্য ভান্ডারে পরিণত হয়েছে।

২। অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেমের নির্দিষ্ট কোন address/ ঠিকানা আছে কিনা?
হ্যাঁ আছে। শুধু কেন্দ্রীয় কজলিস্ট সিস্টেম নয় প্রত্যেকটি জেলা আদালতের জন্য আলাদা আলাদা address/ঠিকানা আছে। তবে একটি মাত্র ঠিকানা মনে রেখেই সকল আদালতের সুবিধা পাওয়া সম্ভব। যেমনঃ causelist.judiciary.org.bd এই ঠিকানা থেকেই সকল বাতায়নে surf করার সুবিধা এই সিস্টেমে রাখা হয়েছে।

৩। অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেম কেন?
একটা নির্দিষ্ট ফ্রেমওয়ার্কের আওতায় দেশের সকল জেলা জজ আদালতের ওয়েবসাইট নির্মাণ করা হয়েছে। সেই ওয়েবসাইটের একটি নির্ধারিত অংশে কার্যতালিকা নামে একটি পৃথক বাটন সংযুক্ত করা আছে। কেন্দ্র অর্থ্যাৎ সুপ্রীম কোর্ট থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায় পর্যন্ত তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করা; অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেম সেবামুখী ও ব্যবহারকারী বান্ধব এবং সহজে হালনাগাদযোগ্য করা হয়েছে। তথ্য অধিকার আইন অনুযায়ী অবাধ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করা হয়েছে। জনগণের চাহিদামাফিক সহজে মামলা সংক্রান্ত তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্যই কজলিস্ট সিস্টেম তৈরি করা হয়েছে।

৪। এই সিস্টেমের বিশেষ বৈশিষ্ট্য কি?
এই কজলিস্ট সিস্টেমকে বাংলাদেশের আদালতগুলোতে একজন নাগরিকের মামলা সম্পর্কে আদালতে না গিয়ে আদালতের সাথে সহজে যোগাযোগ করা যায় এবং সেই সকল আদালত হতে প্রদত্ত সেবা সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করা যায়। বিচারিক সেবার তথ্য এই সিস্টেম থেকে সংগ্রহ করা যায়, যা কিনা অন্য ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করা কষ্টকর ও সময়সাপেক্ষ্।

৫। এই সিস্টেমের উদ্দেশ্য কি?
একটি ওয়ান স্টপ অনলাইন সিস্টেম হিসেবে এই কজলিস্ট বাতায়ন মামলার তথ্যপ্রাপ্তি সেবাসমূহের সর্বশেষ তথ্য প্রদান করার লক্ষ্য নিয়ে চালু করা হয়েছে। সকল আদালতের দৈনন্দিন কার্যতালিকা ও আদালত ডায়েরির সমন্বয়ে তৈরিকৃত এটি একটি অন্যতম ই-জুডিসিয়ারী উদ্যোগ। এই ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমেই বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সহযোগিতায় মামলা সঙ্ক্রান্ত সেবাসমূহের সব রকম তথ্য সহজে জনগণের কাছে পৌঁছাতে চায়।

৬। এই কজলিস্ট সিস্টেমে কি কি ধরণের তথ্য প্রদান করবে?
বাংলাদেশের আদালতগুলোতে যে সকল মামলা আছে তার সকল তথ্য, পরবর্তী তারিখ, পরবর্তী তারিখ ধার্য করণের কারন একটি ক্লিকের মাধ্যমে সহজে পাওয়া যাবে।

৭। কে বা কারা এই সিস্টেম ব্যবহার করতে পারবে?
বাংলাদেশ এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশ হতে সকল শ্রেণীর ব্যবহারকারীগণ তাদের প্রয়োজন অনুসারে এই সিস্টেম ব্যবহার করতে পারবে।

১০। বিভিন্ন আদালতে কজলিস্টের তথ্য কোথায় পাওয়া যাবে?
প্রথমে আপনাকে জানতে হবে আপনার মামলা কোন জেলার কোন আদালতে আছে। তারপর সেই জেলা আদালত বাতায়ন থেকে মামলার কার্যতালিকা বাটনে ক্লিক করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেই জেলা আদালতের সকল আদালতের তালিকায় নিয়ে যাবে। সেখান থেকে আদালত সিলেক্ট করে আপনার মামলা সম্পর্কে তথ্য নিতে পারেন। অথবা সরাসরি ঐ আদালতে গিয়ে মামলা নম্বর দিয়ে কার্যতালিকা খুঁজুন বাটনে ক্লিক করে মামলার তথ্য পাওয়া যাবে।

১১। কিভাবে ওয়েব অ্যাড্রেস মনে না রেখে আমি জেলা আদালত ও অন্যান্য বিচার বিভাগ সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠান এর ওয়েব সাইট দেখতে পারি?
এই জন্য প্রথমে আপনাকে জানতে হবে আপনি কোন বাতায়ন থেকে ব্রাউজ করতে চান। ধরুন আপনি বিচার বিভাগীয় বাতায়ন থেকে সামান্য একটি অ্যাড্রেস মনে রাখলেই হবে। "www.judiciary.org.bd"আপনি এই অ্যাড্রেসটি একটি ব্রাউজার ওপেন করে url বার এ উক্ত অ্যাড্রেস লিখে Enter Press করলেই ওপেন হবে। তার পর একটি Top Nevigation বার আসবে, সেখানে আপনি উচ্চ আদালত, জেলা আদালত, ও ট্রাইব্যুনাল সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানের তালিকা দেখতে পাবেন, এবার আপনি এর উপর মাউসের কার্সরটি নিয়ে click করলেই আপনার কাঙ্খিত বিভাগটি চলে আসবে।

১৩। অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেম কি ব্রাউজার ইন্ডিপেন্ডেন্ট (স্বাধীন) ?
সকল ব্রাউজারেই অনলাইন কজলিস্ট সিস্টেম ব্রাউজ করা যাবে, এটি সম্পূর্ন ব্রাউজার ইন্ডিপেন্ডেন্ট (স্বাধীন) ।